1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

সহজে স্টুডেন্ট লোন পেতে

কর্মজীবনকে সমৃদ্ধ করে তোলার জন্য গতানুগতিক ডিগ্রির পাশাপাশি উন্নত ওউচ্চপর্যায়ে বিভিন্ন ডিগ্রি অর্জন করতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন৷ বেসরকারিকয়েকটি ব্যাংক সহজ শর্তে ছাত্রদের জন্য দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দিয়ে থাকে৷ আগ্রহী শিক্ষার্থীদের সুযোগ করে দিতে যে ঋণ দেওয়া হয় তাই স্টুডেন্ট লোননামে পরিচিত৷ আপনাদের সুবিধার্থে কিছু ঋণদানকারীপ্রতিষ্ঠানের ঋণদানেরশর্তসমূহ, সুদের হার, ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করার ঠিকানা বিস্তারিত দেয়াহল ৷

ঋণ দিচ্ছে এমন কয়েকটি প্রতিষ্ঠান: দেশের অর্থনৈতিক মন্দা এবং মুদ্রাস্ফীতির কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঋণদানেরখাতসমূহকে সন্কুচিত করে দিলেও বিশেষ সেবা প্রদান কর্মসূচির আওতায় দেশেরবেশ কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংক প্রতিষ্ঠান ছাত্রঋণ দিয়ে থাকে৷ এর প্রধানউদ্দেশ্য, উচ্চবিত্তদের পাশাপাশি মধ্যবিত্তরাও যেন উচ্চশিক্ষা গ্রহণেরসুযোগ পায়৷

কিছু কিছু ব্যাংক একে ক্যারিয়ার লোন বলে আবার কিছু ব্যাংক একেসরাসরি স্টুডেন্ট লোন বা শিক্ষা ঋণ নামে অভিহিত করে৷ সাধারণত অভিভাবক অথবাসরাসরি শিক্ষার্থীদেরও এ ধরনের ঋণ দেওয়া হয়৷ তবে এ ক্ষেত্রে অভিভাবকঅথবা শিক্ষার্থীদের ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের কিছু শর্ত মেনে ঋণ নিতেহয়৷

ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানের নাম: এইচএসবিসি ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, উত্তরা ব্যাংক, গ্রামীন ব্যাংক।

ঋণ উঠানোর যোগ্যতা: ঋণ পরিশোধে সক্ষম বিবেচিত যে কেউ এই ব্যাংকগুলো থেকে শিক্ষা ক্ষেত্রে ঋণনিতে পারে৷ সাধারণত সরকারি কিংবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরতকর্মকর্তা-কর্মচারীকে যাদের বেতন ১২-১৮ হাজার টাকা তারাই এ লোনের সুবিধাপেয়ে থাকেন৷ ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে আয়ের প্রমাণ সাপেক্ষে মাসিক আয়অবশ্যই ৫০ হাজার টাকা হতে হবে৷ ২৫ বছর থেকে ৬০ বছর বয়সের যে কেউ যোগ্যতাঅনুসারে ঋণ নিতে পারবেন৷

ঋণ নেওয়ার পদ্ধতি: অভিভাবকরা যদি তাদের সন্তানদের জন্য শিক্ষা নিতে আগ্রহী হন, তবে যেসবব্যাংক ঋণ দিয়ে থাকে সেগুলোর যেকোনো শাখায় গিয়ে মার্কেটিং/ক্রেডিটবিভাগে যোগাযোগ করতে হবে৷ সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাই আপনাকে বিস্তারিত জানিয়ে দেবেন৷ তবে এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি ও ডকুমেন্টযেমন- আয়ের প্রমাণপত্র, কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির সনদ ও ছাত্রছাত্রীরসম্মতিপত্র জমা দিতে হবে৷ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনার কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করেনূন্যতম সময়ে আপনার কাw•ক্ষত ঋণ দিয়ে দেবে৷

এইচএসবিসি ছাত্র ঋণ © http://www.hsbc.com.bd
এইচএসবিসি থেকে ছাত্রঋণ নেয়ার শর্ত : কোনো প্রকার ব্যক্তিগত গ্যারান্টি বা নগদ জামানত দিতে হয় না। ঋণ নিতে হলে অবশ্যই পরিবারের কোন সদস্যকে আয় করতে হবে এবং তার মাসিক আয় ১৮ হাজার থেকে ২২ হাজার হতে হবে ৷ এইচএসবিসি ৫০ হাজার টাকা থেকে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা অথবা ঋণ গ্রহণকারীর মাসিক আয়ের ৪ গুণ পরিমাণ ঢাকা ঋণ দিয়ে থাকে৷

ঋণের সুদের হার ১৮%। তুলনামূলক কম সুদে এই ঋণ পরিশোধ করতে হয় ১২, ২৪, ৩৬, ৪৮ ও ৬০ মাসের মধ্যে৷ স্টুডেন্ট ফাইল খোলার সুবিধা আছে৷ যদি কোনো আউটপুট অথবা সিইপিএস গ্রাহক ছাত্রঋণ নিতে চায়, তবে তাকে ৬ ও ১০গুণ হিসেবেও ঋণ দেওয়া হয়৷ তবে তা সর্বোচ্চ ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার বেশিনয়৷

ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন : মার্কেটিং এন্ড পাবলিক রিলেসান্স ম্যানেজার, এইচএসবিসি ঢাকা মেইন অফিস ১/১- বি, সোনারগঁাও রোড, ঢাকা- ১২০৫, বাংলাদেশ ফোন- ০১১৮৮৫৬২৬ (ঋণ শাখা ০১১৮৮৪৭২২ (এইচএসবিসি অফিস) তথ্যসূত্র; http://www.hsbc.com.bd

ব্র্যাক ব্যাংক শিক্ষা ঋণ: © http://www.bracbank.com
ব্র্যাক ব্যাংকে সরাসরি এডুকেশন লোন স্কিম না থাকলেও পার্সোনাল লোন স্কিমের মাধ্যমে লোন দেয়৷ ব্র্যাক ব্যাংক শিক্ষাঋণের শর্তসমূহ: দেশের বাইরে পড়াশুনার জন্য ঋণ প্রদান করে থাকে৷ কোন জামানত ছাড়া১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ গ্রহণ করা যায়৷ সবোর্চ্চ ঋণ দেয়ার পরিমান ৩০ লাখ টাকা ঋণ পরিশোধ করার জন্য সময় পাওয়া যায় ১-৪ বছর৷ ঋণ পরিশোধের হার ১৫% ব্যাংক একাউন্ট থাকতে হবে ৷ বিদেশে যাওয়ার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে ৷

ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন: বাড়ি # ১,রোড # ১, গুলশান এভিনিউ গুলশান -১, ঢাকা -১২১২, বাংলাদেশ http://www.bracbank.com ঢাকা:গুলশান-৮৮২৪০৫৩, বনানী-৮৮৫৮৭ঌ৫, মতিঝিল-ঌ৫৫০৩০৭, নওয়াপাড়া -৭১২৫০০০, মগবাজার-ঌ৩৫৫৫৩৮-ঌ, কেরানীগঞ্জ-৭৭৭২৬৬১-২, ধানমন্ডি-৮১৫০১ঌ৮, সাভার-৭৭০২৫২৩-৪, সাতমসজিদ রোড-৮১২৬৬৫৬ চট্টগ্রাম : আগ্রাবাদ- ০৩১-৮১২০৮ঌ সিলেট : সিলেট- ০৮২১-৭২০১৮৮, জিন্দাবাজার-০৮২১-৮১৪৪৪১, বিয়ানীবাজার-০৮২২৩-৮৭৭৪৬ তথ্যসূত্র ঃhttp://www.bracbank.com

প্রাইম ব্যাংক শিক্ষাঋণ: প্রাইম ব্যাংকের এডুকেশন লোন নামে একটি লোন স্কিম চালু আছে৷
প্রাইম ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার শর্তসমূহ: শিক্ষা ঋণ ছাত্র বা ছাত্রীর অভিভাবককে দেয়া হবে ৷ অভিভাবকের আয় অনুযায়ী ঋণের পরিমাণ নির্ধারন করা হয় ৷ এ লোন স্কিম থেকে আগ্রহীরা ১-৩ লাখ টাকা পর্যন্ত লোন নিতে পারেন৷ পরিশোধের সর্বোচ্চ সময়সীমা ২ বছর৷ এ জন্য প্রাইম ব্যাংকে শতকরা ১৫ শতাংশ হারে সুদ প্রদান করতে হয়৷ শিক্ষাথীকে তার প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র জমা দিতে হবে৷ এবং খরচের পরিমাণের ভিত্তিতে লোন দেয়া হয়ে থাকে ৷

ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন: আদমজি কোর্ট,এনেক্স ভবন-২,১১ঌ-১২০ মতিঝিল সি/এ, ঢাকা -১০০০ বাংলাদেশ ফোন – ঌ৫৬৭২৬৫,ঌ৫৬৭০৭৪৭-৮ ( পিএবিএক্স) ফ্যাক্স ৮৮০-২-ঌ৫৬৭২৩০,ঌ৫৬০ঌ৭৭,৮৮০-২-ঌ৫৬৬২১৫ টেলেক্স – 642459 PRIME BJ,671543 PBL MJ BJ ই-মেইল[email protected], [email protected] ওয়েব সাইট -http://www.prime-bank.com তথ্যসূত্র :http://www.prime-bank.com

ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড শিক্ষাঋণ
ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড থেকে শিক্ষাঋণের শর্তসমূহ: ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণ ক্রয়ের ক্ষেত্রে এইচডিএসনামের স্কিমের আওতায় পণ্যসামগ্রীর মূল্যের এক-চতুর্থাংশ ডাউন পেমেন্টনিয়ে লোন দেয়৷ এ জন্য অবশ্য প্রতি বছর ১২.৫০ শতাংশ এবং সুপারভিশন চার্জহিসেবে ২ শতাংশ হারে শোধ করতে হয়৷ এখানে মাসিক কিস্তিতে সর্বোচ্চ ২ বছরের মধ্যে পণ্যের মূল্য পরিশোধ করেত হয়৷

ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন: ইসলামি ব্যাংক টাওয়ার ৪০, দিলকুশা C/A ঢাকা-১০০০,বাংলাদেশ ফোন-ঌ৫৬০০ঌঌ, ঌ৫৬৭১৬১,ঌ৫৬৭১৬২, ঌ৫৬ঌ৪১৭ টেলিক্স-642525 IBANK BJ 632403 IBANK BJ 671620 IBANK BJ ফ্যাক্স-৮৮০-২-ঌ৫৬৪৫৩২, ৮৮০-২-ঌ৫৬৮৬৩৪ ই-মেইল[email protected] ওয়েবসাইট – http//www.islamibankbd.com তথ্যসূত্র :http://www.islamibankbd.com

উত্তরা ব্যাংক
বেতনভুক্ত চাকুরীজীবিদের ব্যক্তিগত ঋণ প্রকল্প: বাংলাদেশের চাকুরীজীবিরা সীমিত আয়ের জনগোষ্ঠী৷ অনেকেই তাদের নিজস্ব সঞ্চয়বা সীমিত আয়থেকে নিজের বা পোষ্যদের বিবাহ, চিকিত্‌সা, সন্তানদের শিক্ষা ওঅন্যান্য জরুরি ব্যয় বহনে অসমর্থ৷ এই জনগোষ্ঠীকে আর্থিক সহায়তা দানেরউদ্দেশ্যে উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড বেতনভুক্ত চাকুরীজীবিদের ব্যক্তিগত ঋণপ্রকল্প (Personal Loan Scheme for Salaried Officers) চালু করেছে৷

(ক) প্রকল্পের উদ্দেশ্য: সীমিত আয়ের বেতনভুক্ত চাকুরীজীবিদের সুস্বস্থ্য, সন্তানদের শিক্ষা ও সুখী জীবন উন্নয়নই এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য৷
(খ) যে সব ক্ষেত্রে এই প্রকল্পের আওতায় ঋণ দেওয়া যাবে: চাকুরীজীবির নিজের বা পোষ্যের বিয়ের জরুরি ব্যয়৷ চাকুরীজীবির জরুরি সার্জিক্যাল অপারেশন/চিকিত্‌সা ব্যয়৷ সন্তানদের জরুরি শিক্ষাসংক্রান্ত ব্যয় যেমন-ভর্তি, বই কেনা, পরীক্ষার ফিস ইত্যাদি৷ ব্যাংকের নিকট গ্রহণযোগ্য অন্যান্য জরুরি প্রয়োজন৷

(গ) যারা এই প্রকল্পের আওতায় ঋণ পেতে পারেন: ২০ (বিশ) থেকে ৫৫ (পঞ্চান্ন) বছর বয়স সীমার মধ্যে নিম্নে বর্ণিত সার্ভিসগ্রুপের কর্মরত স্থায়ী চাকুরীজীবিগণ এই প্রকল্পের আওতায় ঋণ সুবিধাগ্রহণের জন্য আবেদন করতে পারেন:

১) সরকারি৷ ২) আধা-সরকারি৷ ৩) স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান৷ ৪) যৌথসংস্থা৷ ৫) ব্যাংক (উত্তরা ব্যাংক লিঃ এর চাকুরীজীবিগণ ব্যতীত)৷ ৬) বীমা কোম্পানী ৭) সশস্ত্রবাহিনী, বি,ডি,আর, পুলিশ এবং আনসার বিভাগ৷ ৮) বিশ্ববিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয় ও সরকারি স্কুল শিক্ষক৷ ঌ) মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানী৷ ১০) ব্যাংকের নিকট গ্রহণযোগ্য অন্যান্য খ্যাতিসম্পন্ন প্রতিষ্ঠান৷ (ঘ) ঋণের পরিমাণ: সর্বচ্চো টাঃ ১.০০ লক্ষ৷ (ঙ) ঋণ পরিশোধের মেয়াদ: ক্ষেত্র বিশেষে নির্ধারন যোগ্য কিন্তু ৩ (তিন) বছরের অধিক নয়৷

(চ) সুদ ও অন্যান্য চার্জ: ১) সুদ: ১৬.৫% চক্রবৃদ্ধি হারে বকেয়া কিস্তির উপর কিন্তু ১০ টাকার কম নয়৷ ২) দন্ড সুদ: মাসিক ২% হারে বকেয়া কিস্তির উপর কিন্তু ১০ টাকার কম নয়৷ ৩) সার্ভিস চার্জ: ঋণের পরিমাণ ৫০,০০০.০০ টাকা পর্যন্ত টাঃ ২৫০.০০ এবং৫০,০০০.০০ টাকার উর্ধ্বে টাঃ ৫০০.০০ (ঋণ প্রদানের পূর্বে এককালীন দেয়)৷ ৪) রিন্ক ফান্ডঃ ঋণের অংকের ২% কিন্তু সর্বনিম্ন টাঃ ৩০০.০০ (অফেরতযোগ্য) ঋণ গ্রহণের পূর্বে এককালীন দেয়৷ ৫) আবেদন পত্র ও প্রসপেকটাস: মূল্য টাঃ ২৫.০০ (অফেরতযোগ্য)৷

(ছ) ঋণ পরিশোধের পদ্ধতি: মূল ঋণ ও ইহার উপর অর্পিত সুদ সমান মাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে৷ ঋণগ্রহণের পরবর্তী মাস থেকে প্রতি মাসের ৭ তারিখের মধ্যে ঋণ গ্রহিতার মাসিকবেতন থেকে কিস্তি আদায় করা হবে৷ ঋণ গ্রহণের পূর্বে গ্রাহক প্রতিটি কিস্তিরজন্য ব্যাংকের অনুকূলে অগ্রিম চেক জমা দিবে যা নির্দিষ্ট তারিখে সংশ্লিষ্টব্যাংকে পরিশোধের জন্য পেশ করা হবে৷ ঋণ গ্রহণের পূর্বেই ঋণ পরিশোধের সময় ওকিস্তির পরিমাণ নির্ধারণ করা হবে৷

(জ) জামানত ও চার্জ ডকুমেন্টস: ১) ঋণ গ্রহিতার বেতন, প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্রেচুয়েটি ইত্যাদি লিয়েন (Lien) পত্র৷ ২) ১৫০.০০ টাকার নন-জুডিসিয়াল ষ্টাম্প এর উপর ব্যাংকের অনুমোদিতগ্যারান্টি বন্ড যাহা ঋণ গ্রহিতার উপরের পদমর্যাদা সম্পন্ন অফিসার, যে কোনোব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার এবং তার উপরের পদমর্যাদা সম্পন্ন কর্মকর্তাকর্তৃক প্রদেয়৷ ৩) বেতন প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের নিশ্চয়তা পত্র৷

৪) ব্যাংকের অনুমোদিত ফরম এ মাসিক কিস্তি পরিশোধের অঙ্গীকার নামা প্রদান৷ ৫) গ্রাহক কর্তৃক ঋণ গ্রহণের পূর্বে প্রতিটি কিস্তির জন্য পৃথকভাবে ব্যাংকের অনুকূলে অগ্রিম চেক প্রদান৷ ৬) ব্যাংকের নিয়মানুযায়ী অন্যান্য চার্জ ডকুমেন্টস৷ ঝ) ঋণ আবেদন পদ্ধতি: ১) ব্যাংকের নির্ধারিত ফরম এর সকল কলাম পূরন ও স্বাক্ষরযুক্ত আবেদনপত্র৷ ২) প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড অফিসার অথবা কোনো ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার বাতদুর্ধ পদমর্যাদার কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত সদ্য তোলা দুই কপি পাসপোর্টসাইজ ফটো৷

(ঞ)অন্যান্য: যদি গ্রাহক স্বয়ং অথবা তাহার জামিনদার (Guarantor) ঠিকানা অথবা পেশাপরিবর্তন করেন তবে তত্‌ক্ষনাত্‌ পরিবর্তিত ঠিকানা এবং পেশা ব্যাংক কেলিখিতভাবে জানাতে হবে৷

যে সকল শাখায় এই প্রকল্প চালু আছে: স্থানীয় কার্যালয়, ঢাকা৷ কর্পোরেট শাখা, ঢাকা৷ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ শাখা, ঢাকা৷ বাণিজ্য শাখা, ঢাকা৷ ঢাকা শেরাটন হোটেল শাখা, ঢাকা৷ দিলকুশা শাখা, ঢাকা৷ ফকিরাপুল শাখা, ঢাকা৷ বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা, ঢাকা৷ ফুলবাড়িয়া শাখা, ঢাকা৷ হাট খোলা শাখা, ঢাকা৷ হোটেল ঈশাখাঁ ইন্টারন্যাশনাল শাখা, ঢাকাঃ যাত্রাবাড়ি শাখা, ঢাকা৷ মহিলা শাখা, ঢাকা৷ মালিবাগ শাখা, ঢাকা৷ মান্ডা শাখা, ঢাকা৷ মগবাজার শাখা, ঢাকা৷

নবাবপুর শাখা, ঢাকা৷ নিউমার্কেট শাখা, ঢাকা৷ নর্থ শাহজাহানপুর শাখা, ঢাকা৷ রমনা শাখা, ঢাকা৷ শান্তিনগর শাখা, ঢাকা৷ সিদ্ধেসরী শাখা, ঢাকা৷ আমিন বাজার শাখা, ঢাকা৷ আওলাদ হোসেন মার্কেট শাখা, ঢাকা৷ দার-উস-সালাম রোড শাখা, ঢাকা৷ ইস্টা©ন প্লাজা শাখা, ঢাকা৷ এলিফেন্ট রোড শাখা, ঢাকা৷ ই,পি,জেড শাখা, ঢাকা৷ গ্রীন রোড শাখা, ঢাকা৷

গুলশান শাখা, ঢাকা৷ জোয়ার শাহারা শাখা, ঢাকা৷ কলাবাগান শাখা, ঢাকা৷ কাওরান বাজার শাখা, ঢাকা৷ মিরপুর শাখা, ঢাকা৷ পল্লবী শাখা, ঢাকা৷ সাত মসজিদ রোড শাখা, ঢাকা৷ শ্যামলী শাখা, ঢাকা৷ উত্তরা শাখা, ঢাকা৷ আজিমপুর শাখা, ঢাকা৷ বাবুবাজার শাখা, ঢাকা৷ বাংলাবাজার শাখা, ঢাকা৷ চকবাজার শাখা, ঢাকা৷ ধোলাইখাল শাখা, ঢাকা৷ ইংলিশ রোড শাখা, ঢাকা৷ ফরাশগঞ্জ শাখা, ঢাকা৷ ইমামগঞ্জ শাখা, ঢাকা৷ ইসলামপুর শাখা, ঢাকা৷ জনসন রোড শাখা, ঢাকা৷

লালবাগ শাখা, ঢাকা৷ লয়ারষ্ট্রিট শাখা, ঢাকা৷ মিডফোর্ড রোড শাখা, ঢাকা৷ মৌলভী বাজার শাখা, ঢাকা৷ নয়াবাজার শাখা, ঢাকা৷ পিলখানা শাখা, ঢাকা৷ পোস্তা শাখা, ঢাকা৷ টিপুসুলতান রোড শাখা, ঢাকা৷ ডি,আই,টি শাখা, নারায়নগঞ্জ৷ নারায়নগঞ্জ শাখা, নারায়নগঞ্জ৷ মুন্সিগঞ্জ শাখা, মুন্সিগঞ্জ৷ নরসিংদী শাখা, নরসিংদী৷ নিতাইগঞ্জ শাখা, নারায়নগঞ্জ৷ টানবাজার শাখা, নারায়নগঞ্জ৷ মানিকগঞ্জ শাখা, মানিকগঞ্জ৷ জামালপুর শাখা, জামালপুর৷ কিশোরগঞ্জ শাখা, কিশোরগঞ্জ৷

ময়মনসিংহ শাখা, ময়মনসিংহ৷ নেত্রকোনা শাখা, নেত্রকোনা৷ শেরপুর শাখা, শেরপুর৷ টাংগাইল শাখা, টাংগাইল৷ অগ্রাবাদ শাখা, চট্টগ্রাম৷ জুঁবলী রোড শাখা, চট্টগ্রাম৷ খাতুনগঞ্জ শাখা, চট্টগ্রাম৷ লালদিঘী শাখা, চট্টগ্রাম৷ লালখান বাজার শাখা, চট্টগ্রাম৷ নাছিরাবাদ শাখা, চট্টগ্রাম৷ পতেঙ্গা শাখা, চট্টগ্রাম৷ রাঙামাটি শাখা, রাঙামাটি৷ সদরঘাট শাখা, চট্টগ্রাম৷ শেখ মুজিব রোড শাখা, চট্টগ্রাম৷ রিয়াজউদ্দিন বাজার শাখা, চট্টগ্রাম৷ ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া৷

চাঁদপুর শাখা, চাঁদপুর৷ কুমিল্লা শাখা, কুমিল্লা৷ ফেনী শাখা, ফেনী৷ মাইজদী কোর্ট শাখা, নোয়াখালী৷ মোগলটুলী শাখা, কুমিল্লা৷ চাঁপাইনবাবগঞ্জ শাখা৷ নাটোর শাখা, নাটোর৷ পাবনা শাখা, পাবনা৷ রাজশাহী ষ্টেডিয়াম শাখা, রাজশাহী৷ রানী বাজার শাখা, রাজশাহী৷ সাহেব বাজার শাখা, রাজশাহী৷ বগুড়া শাখা, বগুড়া৷ দিনাজপুর শাখা, দিনাজপুর৷ গাইবান্ধা শাখা, গাইবান্ধা৷ জয়পুরহাট শাখা, জয়পুরহাট৷ কুড়িগ্রাম শাখা, কুড়িগ্রাম৷ লালমনির হাট শাখা, লালমনির হাট৷ নওগাঁ শাখা, নওগাঁ৷ নীলফামারী শাখা, নীলফামারী৷

রংপুর শাখা, রংপুর৷ সিরাজগঞ্জ শাখা, সিরাজগঞ্জ৷ পৌরপার্ক মার্কেট শাখা, রংপুর৷ ষ্টেশন রোড শাখা, দিনাজপুর৷ ঠাকুরগাও শাখা, ঠাকুরগাও৷ বাগেরহাট শাখা, বাগেরহাট৷ চুয়াডাঙ্গা শাখা, চুয়াডাঙ্গা৷ যশোর শাখা, যশোর৷ ঝিনাইদাহ শাখা, ঝিনাইদাহ৷ কে,ডি,এ, শাখা, খুলনা৷ কুষ্টিয়া শাখা, কুষ্টিয়া৷ লোয়ার যশোর রোড শাখা, খুলনা৷ মাগুরা শাখা, মাগুরা৷ মেহেরপুর শাখা, মেহেরপুর৷ নরাইল শাখা, নরাইল৷ সাতক্ষীরা শাখা, সাতক্ষীরা৷

স্যার ইকবাল রোড শাখা, খুলনা৷ বরিশাল শাখা, বরিশাল৷ ভোলাশাখা, ভোলা৷ চকবাজার শাখা, বরিশাল৷ বরগুনা শাখা, বরগুনা৷ ফরিদপুর শাখা, ফরিদপুর৷ গোপালগঞ্জ শাখা, গোপালগঞ্জ৷ ঝালকাঠি শাখা, জালকাঠি৷ মাদারীপুর শাখা, মাদারীপুর৷ পটুয়াখালী শাখা, পটুয়াখালী৷ পিরোজপুর শাখা, পিরোজপুর৷ রাজবাড়ী শাখা, রাজবাড়ী৷ শরিয়তপুর শাখা, শরিয়তপুর৷ আম্বরখানা শাখা, সিলেট৷ হবিগঞ্জ শাখা, হবিগঞ্জ৷ লালদিঘীর পাড় শাখা, সিলেট৷ মৌলভীবাজার শাখা, মৌলভী বাজার৷ সুনাবগঞ্জ শাখা, সুনামগঞ্জ৷ সিলেট শাখা, সিলেট৷

গ্রামীন ব্যাংক শিক্ষাঋণ: গ্রামীন ব্যাংকের উচ্চ শিক্ষা ঋণ দিয়ে থাকে ৷ গ্রামীন ব্যাংক ১ঌঌ৭ সাল থেকে এ ধরনের ঋণ দিয়ে আসছে৷
গ্রামীন ব্যাংক থেকে ঋন নেয়ার শর্তসমূহ: ব্যাংকের সদস্যদের ছেলেমেয়েরাএ ধরনের ঋণ পেয়ে থাকে ৷ ৪ থেকে ৫ বছর মেয়াদের এই ঋণ ৩ মাস পর পর কিস্তিতে দেয়া হয় ৷ ঋণ নেয়ার সময় শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার প্রোগ্রেস দেখা হয় ৷ একই পরিবারের অনেক সদস্য এক সাথে ঋণ নিতে পারে ৷ লেখাপড়া শেষ হলে চাকরি হওয়ার পর মাত্র ৫ টাকা সার্ভিস চার্জ নিয়ে ঋনের টাকা কিস্তিতে ফেরত নেয়া হয় ৷ কোন সুদ দিতে হয় না ৷ ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন: বাংলাদেশের গ্রামীন ব্যাংকের যেকোন শাখায়

More News Of This Category